আমেরিকাসহ আরো ২০টি দেশের উপকরণ দিয়ে বোমা বানায় আইএস: প্রতিবেদন

সিএআর বলছে- বেশিরভাগ বোমা তৈরিতে আইএসআইএস সন্ত্রাসীরা এমোনিয়া নাইট্রেট দিয়ে তৈরি সার ব্যবহার করেছে, আর নোকিয়া-১০৫ মোবাইল সেটকে বোমা বিস্ফোরণ ঘটানোর রিমোর্ট কন্ট্রোল হিসেবে ব্যবহার করেছে।
Anthony_Loyd1_879142b

সিরিয়ায় তত্পর ইসলামিক স্টেইট বা আইএস সন্ত্রাসী গোষ্ঠিকে আমেরিকা ও জাপান সহ বিশ্বের আরো ২০ টি দেশের ৫০ টি অস্ত্র কোম্পানি বোমা ও বিস্ফোরক তৈরির সরঞ্জাম সরবরাহ করে চলেছে । যদিও এর আগে বহুবার প্রমানিত হয়েছে যে আমেরিকাই সিরিয়ায় ত্রাস সৃষ্টিকারী সন্ত্রাসী গোষ্ঠীদের সচল রেখে সেখানে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি বজায় রেখেছে।

গতকাল (বুধবার) প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে আরেকটি এই ধরনের প্রমাণসহ রিপোর্ট দিয়েছে লন্ডন ভিত্তিক ‘কনফ্লিক্ট আর্মামেন্ট রিসার্চ’ বা সিএআর নামক একটি অস্ত্র গবেষণা সংস্থা। এটি ইউরোপীয় ইউনিয়নের অনুদানে চালিত একটি অস্ত্র গবেষক দল। এরা মূলত ইরাক ,লিবিয়া ,সোমালিয়া,সাউথ সুদান ,সিরিয়ার মত যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশগুলোতে সরেজমিনে অস্ত্র,গোলাবারুদ পরীক্ষা নিরীক্ষা করে থাকে।

সিএআর বলছে- বেশিরভাগ বোমা তৈরিতে আইএস সন্ত্রাসীরা এমোনিয়া নাইট্রেট দিয়ে তৈরি সার ব্যবহার করেছে, আর নোকিয়া-১০৫ মোবাইল সেটকে বোমা বিস্ফোরণ ঘটানোর রিমোর্ট কন্ট্রোল হিসেবে ব্যবহার করেছে।

আইএস সন্ত্রাসী গোষ্ঠীদের বোমা তৈরির কারখানা এবং অবিস্ফোরিত বোমা থেকে উদ্ধারকৃত ৭০০ ধরণের উপাদান গবেষণা করে সিএআর এর বিশ্লেষকরা বলেছে এসব সরঞ্জাম আইএস সন্ত্রাসীদের কাছে সরাসরি বৈধভাবে পাঠানো হয়েছে। সিএআর এর মতে রাসায়নিক বস্তু, সার, ইলেকট্রিক তার এবং ইলেক্ট্রনিকস সহ বেশিরভাগ উপাদান তুরস্কের মধ্য দিয়েই পাঁচার করে চলেছে সরজন্ত্রকারী রাষ্ট্র ও সন্ত্রাসিগোষ্ঠী। এই দেশগুলো তুরস্কের মধ্য দিয়ে ইরাক ও সিরিয়ায় তৎপর সন্ত্রাসিগোষ্ঠির কাছে আসছে ।









Leave a Reply