তুরস্কে ভয়াবহ বিস্ফোরণ, কমপক্ষে ২৮ জন নিহত

বিশ্লেষকরা মনে করছে, সিরিয়ায় সামরিক অভিযানের ক্ষেত্র প্রস্তুত করতে এবং জনমত গঠনের জন্যে তুরস্কে এই নির্মম হত্যাকান্ড ঘটানো হয়েছে।

4bk2bbf2de89b83vjd_620C350

গতকাল বুধবার, তুরস্কের রাজধানী আংকারার মধ্যাঞ্চলে ভয়াবহ বিস্ফোরণে অন্তত ২৮ জন নিহত ও ৬১ জন আহত হয়েছে। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমের খবর অনুযায়ী, এ বিস্ফোরণের তীব্রতা এতটাই বেশি ছিল যে, তাতে রাজধানীর বিরাট অংশ কেঁপে ওঠে। প্রাপ্ত তথ্যমতে, তুরস্কের সংসদ ভবন ও সামরিক বাহিনীর একটি হাউজিং কমপ্লেক্সের কাছে এ বিস্ফোরণ ঘটেছে।

অপরদিকে তুরস্কের উপ প্রধানমন্ত্রী ও সরকারের মুখপাত্র নুমান কুরতুলমুস বলেছে, বিস্ফোরণে আহত ৬১ জনকে রাজধানীর ১৪টি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে প্রাথমিকভাবে সে বিস্ফোরণে হতাহতদের সঠিক সংখ্যা জানাতে পারেন নি। পরে অবশ্য নুমান কুরতুলমুস জানায়, বিস্ফোরণে “অন্তত ২৮ জন” নিহত হয়েছে। এর আগে, তুরস্কের স্বাস্থ্যমন্ত্রী মেহমেত মুয়েজিনওগ্লু ২০-২১ জন নিহত হওয়ার কথা বলেছিল।

এছাড়া তুরস্কের ক্ষমতাসীন জাস্টিস অ্যান্ড ডেভলপমেন্ট পার্টি বা একেপি’র কর্মকর্তা ওমর সেলিক এ ঘটনাকে “সন্ত্রাসী তৎপরতা” বলে মন্তব্য করেছে। ওমর সেলিক বলেছে, রাজধানীর ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় বোমা বিস্ফোরণের মাধ্যমে আরেকবার সন্ত্রাসবাদের মুখোশ উন্মোচন হয়েছে।

তুরস্কের সরকারি বক্তব্য অনুযায়ী, একটি বাসে এ বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। বাসটিতে তুরস্কের জেনারেল স্টাফের সদস্যরা ছিল। বিস্ফোরণের পর তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান তার পূর্বঘোষিত আজারবাইজান সফর বাতিল করেছে। এছাড়া, প্রধানমন্ত্রী আহমেদ দাউদওগ্লুর ব্রাসেলস সফর করার কথা ছিল কিন্তু সে সফর বাতিল করা হয়েছে।









Leave a Reply