সন্ত্রাসীদের সাহায্য না দেয়ার শর্তে যুদ্ধবিরতি চায় বাশার আল-আসাদ

সন্ত্রাসী দমনাভিযান বন্ধের আগে সন্ত্রাসীদের শক্তিশালী করার পথগুলো আগে বন্ধ করতে হবে- বাশার আল-আসাদ।

4bk16136639bd92wvs_620C350
আন্তর্জাতিক সহায়তা দলের প্রতিনিধিরা অবরুদ্ধ অঞ্চলের জনগণের কাছে ত্রাণ-সাহায্য পাঠানোর জন্যে সিরিয়ায় যুদ্ধ-বিরতি প্রতিষ্ঠার জন্য কাজ করছিল। কিন্তু আমেরিকার মদদে তুরস্ক, সৌদি ও কাতার সিরিয়ায় ইসলামিক স্টেইটকে মোকাবেলা করার অজুহাতে স্থলসেনা পাঠানো অব্যাহত থাকায় তা আর সম্ভব হচ্ছেনা।

গতকাল এল পাইস নামক স্পেনিশ সংবাদ মাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে এমনটাই জানিয়েছেন সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদ। সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বলেছে –

‘ তুরস্কসহ অন্যান্য দেশগুলো সন্ত্রাসী ও যুদ্ধাস্ত্র পাঠানো বন্ধ করলেই কেবল যুদ্ধবিরতিতে যাওয়া সম্ভব ‘।

আসাদ বলেছে – যদি নিশ্চয়তা দেওয়া হয় যে, সন্ত্রাসীদের পালনকারী দেশগুলো সিরিয়ায় তত্পর সন্ত্রাসীদের আর কোনো ধরনের সহায়তা প্রদান করবেনা তাহলে সে যুদ্ধবিরতিতে সম্মতি দেবে। আসাদের মতে –

‘ সন্ত্রাসী দমনাভিযান বন্ধের আগে সন্ত্রাসীদের শক্তিশালী করার পথগুলো আগে বন্ধ করতে হবে ‘।

বক্তব্যের এক পর্যায়ে সে বলে, যে দেশের জনগনের সম্মতি ক্রমে সে প্রেসিডেন্ট হয়েছে সে দেশকে রক্ষা করার দায়িত্ব তারই – ‘ সিরিয়ার জনগণ আমাকে নির্বাচিত করেছে ,তাই আমি ক্ষমতায় আছি ,তারা না চাইলে ক্ষমতা না ছেড়ে আমার উপায় নেই ‘। এছাড়াও সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে সম্প্রতি কয়েকটি অভিযানে পরপর সফলতায় রাশিয়া ও ইরানের সহায়তার কথা সে কৃতজ্ঞতার সাথে উল্লেখ করেছে।

প্রসঙ্গত ,সিরিয়ার জনগনের নির্বাচিত বৈধ সরকারকে উচ্ছেদ করার লক্ষে সেখানে সন্ত্রাসী ও অস্ত্র পাঠিয়ে সাহায্য করছে আমেরিকা , তুরস্ক, সৌদি আরব ও কাতার সহ আশিটির মত দেশ।









Leave a Reply